আশাশুনি প্রতিনিধি: ২১ শে ফেব্রুয়ারী জাতীয় পতাকা অবমাননার প্রতিযোগীতায় নেমেছিল আশাশুনি উপজেলার বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ও এনজিও।

সরেজমিন ঘূরে দেখা গেছে, মহান ২১ ফেব্রুয়ারী ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের লক্ষে এদিন সকাল থেকে প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠান জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে। কিন্তু দিন শেষে সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত হলেও এসকল প্রতিষ্ঠান জাতীয় পতাকা নামানোর প্রয়োজন মনে করেনি।

বুধহাটা বাজারের গীর্জা প্রবেশের পথে অবস্থিত মোঃ মোমিন হোসেনের ভাই ভাই স্টিল হাউজ, বুধহাটা বাজারের ঠাকুরের মোড়ে অবস্থিত দেবদূত স্টোর, উদায় সাধু ওয়েল মিল, তরকারী বাজার সংলগ্ন গোবিন্দ সাধু স্টোর, মা জুয়েলার্স, খেয়াঘাট সড়কে অবস্থিত বনফুল রেষ্টুরেন্ট, ভি আই পি ফ্যাশান টার্চ, বুধহাটা ব্যাংদহা সড়কে অবস্থিত তানিয়া অটো রাইস মিল, বুধহাটা বাসষ্টান্ডে অবস্থিত তমেজউদ্দীন ওয়ার্কসপ, রহমানিয়া ফিলিং স্টেশন, কুল্যার মোড় সংলগ্ন আলোর দিশা ফাউন্ডেশন, বড়দল ইউনিয়নের গোয়ালডাঙ্গা বাজারের গীতাঞ্জলী জুয়েলার্স সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত হলেও জাতীয় পতাকা নামানোর প্রয়োজন মনে করেনি।

এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানে সঠিক ভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন না করে আকাবাঁকা অবস্থায় পতাকা উত্তোলন করতে দেখা গেছে। এসকল প্রতিষ্ঠান দেশের সর্বোচ্চ সম্মানীয় জাতীয় পতাকার অবমাননা করায় সচেতন মহলের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছে।

আশাশুনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মীর আলিফ রেজা বলেন, জাতীয় পতাকা অবমাননার ঘটনা দুঃখ জনক। তবে আগামীতে সংশ্লিষ্ট মির্টিংয়ে এ বিষয়ে আলোচনা করে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।