*/
সংবাদ শিরোনাম :
কয়লায় নৌকা ও মোটর সাইকেল প্রতীকের কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ: আহত ৫ সাতক্ষীরা: শিক্ষার্থীদের আগমনে প্রাণ ফিরে পেল খানপুর সরঃ প্রাথঃ বিদ্যালয় ভোমরার বিভিন্ন স্কুলে সাবেক ছাত্রলীগ সম্পাদকের মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণ সাতক্ষীরা: শিবপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে সংঘর্ষ: ঘটনাস্থল পরিদর্শনে পিবিআই সাতক্ষীরা: নকল কসমেটিক্সের দোকান ও ভেজাল ঘির ফ্যাক্টরিতে র‍্যাবের অভিযান জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমানকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান ‘ল এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এনইউবিটি খুলনাতে ফল সেমিষ্টারের এ্যাডমিশন ফেয়ার তালা: গলায় উড়না পেঁচিয়ে যুবকের আত্মহত্যা হয়রানী ছাড়াই সুন্দরবনে প্রবেশের পাশ পেয়ে খুশি বনজীবীরা কলারোয়া: এবার ৭৩ লক্ষ টাকা মূল্যের ১০টি স্বর্ণেরবারসহ চোরাকারবারী গ্রেপ্তার
অন্যের হয়ে সাজা খাটা মিনুকে মুক্তির নির্দেশ

অন্যের হয়ে সাজা খাটা মিনুকে মুক্তির নির্দেশ

এসভি ডেস্ক: চট্টগ্রামে হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কুলসুম আক্তারের হয়ে জেল খাটা মিনুকে মুক্তির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে জেলা নারী ও শিশু আদালতের পিপিসহ ৩ আইনজীবীকে তলব করা হয়েছে।

সোমবার (৭ জুন) হাইকোর্টের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীমের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে মিনুর পক্ষে শুনানি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. শিশির মনির। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. মো. বশির উল্লাহ।

মিনুর আইনজীবী শিশির মনির বলেন, বিগত দুই বছরে আমাদের দেশে এমন ২৬টি ঘটনা ঘটেছে। একজনের নামে আরেকজন জেলে থাকে। আসল আসামি শনাক্তে অনেক পদ্ধতি আছে। এ বিষয়ে আমি আরও লিখিতভাবে আদালতকে জানাব।
এর আগে গত ২৪ মার্চ এই হত্যা মামলার নথি বিশেষ বাহকের (স্পেশাল ম্যাসেঞ্জার) মাধ্যমে হাইকোর্টে পাঠানো হয়।

এই মামলায় মিনুর পক্ষের আইনজীবী জানান, কারাগারের একটি বালাম বই দেখতে গিয়ে মিনুর সাজা খাটার বিষয়টি উঠে আসে। সেখানে দেখা যায় একজনের পরিবর্তে যাবজ্জীবন সাজা খাটছেন এই নারী।

পরবর্তী সময়ে বিষয়টি আদালতের নজরে আনা হলে এ মামলার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হাইকোর্টে পাঠানোর আদেশ দেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভূঁঞার আদালত। দ্রুত সমাধানের জন্য আদেশের একদিন পর মামলার উপনথি হাইকোর্টে পাঠানো হয় বিশেষ বাহকের (স্পেশাল ম্যাসেঞ্জার) মাধ্যমে।

মহনগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউট (পিপি) মো. নোমান চৌধুরী বলেন, আদালতে সংরক্ষিত ছবি সম্বলিত নথিপত্র দেখে কুলসুম আক্তার আর মিনু এক নয় বলে নিশ্চিত হয়েছেন। যেহেতু ইতোমধ্যে এ মামলার রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করা হয়েছে তাই মামলার উপনথি দ্রুত সময়ের হাইকোর্টে পাঠানো হয়েছে।

আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে মিনু আক্তার দাবি করেন, তিন বছর আগে রমজান মাসে ভোগ্যপণ্য দেওয়ার নাম করেই কুলসুমা আক্তার তাকে আদালতে নিয়ে আসেন। তার শেখানো মতো আদালতের ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে কারাবাস করতে হচ্ছে তাকে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, মোবাইলে কথা বলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম নগরীর রহমতগঞ্জের একটি বাসায় ২০০৬ সালের জুলাইয়ে গলা টিপে হত্যা করা হয় গার্মেন্টসকর্মী কোহিনূর আক্তারকে। এরপর রহমতগঞ্জে একটি গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয় সেই মরদেহ। কোহিনুর আত্মহত্যা করেছেন বলে দাবি করেন গার্মেন্টস কর্মী কুলসুম আক্তার।

তদন্তে বেরিয়ে আসে, কোহিনুরকে শ্বাসরোধে হত্যা করে আত্মহত্যা হিসেবে প্রচারের জন্য গাছে ঝুলিয়ে রাখেন কুলসুম। ২০০৭ সালের ২৬ অক্টোবর কুলসুমকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। এক বছর তিন মাস পর তিনি জামিনে মুক্তি পান।

২০১৭ সালে মামলার রায় ঘোষণা করেন তখনকার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক নুরুল ইসলাম। তাতে কুলসুমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। সে সময় কুলসুম পলাতক ছিলেন।

পরে আইনজীবী নাছির উদ্দীনের মাধ্যমে ২০১৮ সালের জুনে কুলসুম আত্মসমর্পণ করতে চান। আত্মসমর্পণের দিনই মিনুকে কুলসুম হিসেবে সাজিয়ে আদালতে হাজির করা হয়। তখন থেকেই কারাগারে আছেন মিনু। নামের মিল না থাকার পরও কুলসুম আক্তারের বদলে মিনু চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন দুই বছর নয় মাসের বেশি সময় ধরে।

কোনো কিছুর মিল না থাকায় একজনের স্থলে আরেকজন জেল খাটার বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো. শফিকুল ইসলাম খান। বিষয়টি নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।





All rights reserved © Satkhira Vision

Design & Developed BY ThemesBazar.Com

Notice: ob_end_flush(): failed to send buffer of zlib output compression (0) in /home/comsatkhira/public_html/wp-includes/functions.php on line 5107