রহস্য’র বেড়াজালেবন্দী রবিউল হত্যা! ৭বছরেও বিচার পাইনি পরিবার – Satkhira Vision

May 13, 2021, 3:23 am

সংবাদ শিরোনাম :
তালা: অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করলেন সাংবাদিক নজরুল ইসলাম সাতক্ষীরা: এতিমদের সাথে ছাত্রলীগের ইফতার সাতক্ষীরা: সাপ্তাহিক সূর্যের আলোর উদ্যোগে কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ স্ত্রী হত্যা মামলায় সাবেক এসপি বাবুল আক্তার গ্রেফতার সাতক্ষীরা: ভুল নাম্বারে চলে যাওয়া বিকাশের টাকা উদ্ধার করলো পুলিশ শ্যামনগর: আনসার ভিডিপি সদস্যদের মাঝে ঈদ শুভেচ্ছা প্যাকেজ বিতরণ তালাঃ হাজরাকাটীর সেলিম গাজীর পক্ষ থেকে ঈদ সামগ্রী বিতরণ  কলারোয়া: ফেনসিডিলসহ মহিলা মাদক ব্যবসায়ী আটক কলারোয়া পৌরসভায় সাড়ে ৩ হাজার পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ কালিগঞ্জ: ট্রাকের নিচে ঝাঁপ দিয়ে ঋণগ্রস্ত দলিল লেখকের আত্মহত্যা
রহস্য’র বেড়াজালেবন্দী রবিউল হত্যা! ৭বছরেও বিচার পাইনি পরিবার

রহস্য’র বেড়াজালেবন্দী রবিউল হত্যা! ৭বছরেও বিচার পাইনি পরিবার

নিজস্ব প্রতিনিধি: আজ ২৬শে আগস্ট। সাতক্ষীরার ইতিহাসের এক জঘন্যতম দিন। আজ সাতক্ষীরা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ-সম্পাদক রবিউল ইসলামের ৭ম শাহাদাৎ বার্ষিকী। এই দিনটি শিবপুর ইউনিয়নের মানুষের নিকট শোকাহত রক্তাক্ত ২৬শে আগস্ট হিসেবে খ্যাত। রবিউল হত্যার দীর্ঘ ৬ বছর অতিবাহিত হলেও আজও রবিউল হত্যার বিচার হয়নি।

দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও রবিউল হত্যার বিচার না হওয়ায় ভেঙ্গে পড়েছেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ । এসময় তারা বলেন, একজন দক্ষ আওয়ামীলীগ নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন রবিউল ইসলাম। তবে রবিউল হত্যার বিচার যদি দল ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় করতে না পারে, তাহলে আমাদের মতো সাধারন কর্মীদের অবস্থা কি হবে? রবিউল হত্যার পরবর্তী দীর্ঘ ৭ বছর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়। অথচ কেউই ওনার হত্যার বিচারের ব্যাপারে খোঁজ- খবর রাখে নাই। বরং শোক দিবসে মঞ্চ গরম করার বক্তব্য দিতে ব্যস্ত থাকে সবাই তবে কেউ রবিউল হত্যা কান্ডের প্রকৃত রহস্য উদঘাটনে কোনপ্রকার সহযোগীতা করিনি।

এসময় তারা বলেন, ২০১৩সালের ২৮শে ফেব্রুয়ারী মানবতা বিরোধী অপরাধে জামায়াত নেতা দেলোয়ার হুসাইন সাঈদীর যাবজ্জীবন রায় কার্যকর হওয়ার পর পরই সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নে বি.এন.পি জামায়াত-শিবিরের ক্যাডারা এলাকায় ব্যাপক তান্ডবলীলা শুরু করে। তারা সড়কের পাশের গাছ ও সর্বসাধারনের চলাচলের রাস্তা কেটে এলাকাটি-কে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। অবরুদ্ধ করে ফেলে শিবপুরের সাথে অন্যান্য জায়গার যোগাযোগ। একপর্যায় ২৬শে আগস্ট রাতে পরানদহা থেকে বাড়ি ফেরার পথে আওয়ামীলীগ নেতা রবিউল ইসলামকে ইউনিয়নের সোনাডাঙ্গা রাস্তার ধারে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। তার এই অকাল মৃত্যুতে শিবপুর আওয়ামীলীগ নেতৃত্বশূন্য হয়ে পড়ে জানান তারা।

জনপ্রিয় এ কর্মীবান্ধব নেতাকে হারিয়ে শিবপুরের মানুষের মাঝে নেমে আসে এক অন্ধকারের ঘনঘটা। হত্যার পরবর্তী প্রতিবছর এই দিনটি স্মরণ করে মিলাদ-মাহফিল, স্মরণসভা, কবর জিয়ারতসহ নানা আয়োজন করা হয়। তবে আজ পর্যন্ত ইউনিয়ন আওয়ামীলীগসহ সহযোগী-সংগঠনের নেতাকর্মীরা রবিউল ইসলামকে ভূলতে পারেন না।

সূত্রমতে, সাতক্ষীরায় আওয়ামী লীগ নেতা রবিউল ইসলাম হত্যাকাণ্ডের একদিন পর ২০১৩ সালের ২৮শে আগস্ট রবিউল হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহে জেলা জামায়াতের আমীর সাবেক এমপি মাওলানা আব্দুল খালেকের ছেলে শামীম হোসেন, আগরদাঁড়ীর কাজী আকরাম হোসেন, পায়রাডাঙ্গার রফি, শফি ও দেলোয়ারসহ ২২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ১০/১২ জনকে আসামি করে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন রবিউল ইসলামের ভাই আনারুল ইসলাম। তবে ঘটনার দিন (২৬শে আগস্ট সোমবার) দুপুরে একটি গ্রাম্য সালীশে স্থানীয় কয়েকজনের সঙ্গে রবিউল ইসলামের হাতাহাতি হয়।

এসময় রবিউল হত্যাকান্ড নিয়ে রবিউলের পরিবারের মাঝে সংশয় সৃষ্টি হয়। হাতাহাতির ঘটনাকে কেন্দ্রকরেও রবিউলকে হত্যা করা হতে পারে বলে দাবি করেন তারা। একারনে তারা রবিউল হত্যার প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের জন্য সি,আই,ডি কে তদন্তভার দেওয়ার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরে বারবার অনুরোধ করলেও সেটা ব্যস্তবায়ন হয়নি আজও। এছাড়াও তৎকালিন সাতক্ষীরা সদর থানার ওসি শাহজাহান আলী খান আ’লীগ নেতা রবিউল হত্যার মামলা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন!

ঐসময় তিনি তার বক্তব্যে সাংবাদিকদের জানান, হাতাহাতির ঘটনার সাথে রবিউল হত্যার গভীর সম্পর্ক থাকতে পারে বলে পুলিশ প্রাথমিক ভাবে ধারণা করছে। এঘটনাকে কেন্দ্রকরে তারা রাজনৈতিক কোন্দলকে ব্যবহার করে এহত্যাকান্ড ঘটাতে পারে তবে চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ড, সেহেতু তদন্তের স্বার্থে এ মুহুর্তে সব কিছুই গোপন রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি। তবে এরপরেই সাতক্ষীরা সদর থানা থেকে বদলী করা হয় ওসি শাহাজাহান আলীকে। একারনে রবিউল হত্যাকান্ড তদন্তে ধীরগতি নেমে আসে। এরপর থেকে রবিউল হত্যাকান্ডের প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের জন্য মামলার তদন্তভার সিআইডি’র কাছে হস্তান্তরের জন্য রবিউলের পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার অনুরোধ করলে সেটা আজও বাস্তবায়ন হয়নি।

এবিষয়ে মরহুম রবিউল ইসলামের সহদর ও শিবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্তমান সাধারণ-সম্পাদক ওবায়দুর রহমান (মানি) বলেন, সেদিনের (২৬শে আগস্ট ২০১৩) গ্রাম্য সালীশের হাতাহাতি নাকি জামায়াত-শিবিরের হাতে আমার ভাই নৃশংসভাবে হত্যা হয়েছে সেটা সম্পর্কে আজও অজ্ঞাত আমরা। আমার ভাই হত্যার প্রকৃত রহস্য উদঘাটনোর জন্য পুনরায় হত্যা মামলাটি সিআইডি দিয়ে তদন্ত করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ করেন তিনি। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, পারিবারিক ভাবে মরহুম রবিউল ইসলামের রূহের মাগফিরাত কামনা করে এক দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।


 

 




All rights reserved © Satkhira Vision

Design & Developed BY Asha IT