ওসি প্রদীপের গা শিউরে ওঠার মতো এক ঘটনা প্রকাশ – Satkhira Vision

September 24, 2020, 7:11 am

সংবাদ শিরোনাম :
সাতক্ষীরা: বড় বাজার সংলগ্ন নেট টেলিকমে দূর্ধর্ষ চুরি কলারোয়া: কেরালকাতা ইউপির উপনির্বাচনে ৩ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা সাতক্ষীরা: মীর্জা সালাউদ্দীনের নেতৃত্বে মাদক বিরোধী অভিযান, ডোপ টেস্টে ১৫ জন পজিটিভ বাহাউদ্দিন নাছিমের সুস্থতা কামনায় বিবিসি ফান্ডেশনের দোয়া অনুষ্ঠান ফলোআপ: সাতক্ষীরা ভিশন সংবাদ প্রকাশের জের, দীনমুজুরের চিকিৎসাসেবায় এগিয়ে এলো বিবিসি ফাউন্ডেশন কলারোয়া: উপজেলা অফিসার্স ওয়েল ফেয়ার ক্লাবে ওসি শেখ মুনীর-উল-গীয়াসের বিদায় সংবর্ধনা সাতক্ষীরা: ৮৭ বোতল ফেন্সিডিলসহ শাখরার মনিরুল ও রিয়াজুল গ্রেফতার কলারোয়া: বিত্তবানরা এগিয়ে আসলে বাঁচতে পারে ক্যান্সার আক্রান্ত তন্নি সাতক্ষীরা: পায়ের তিনটি আঙুল কেঁটে বাদ দিলেন হাতুড়ে ডাক্তার! পঙ্গু হলেন দীনমজুর দেবহাটা: গ্রাম্য ডাক্তারের অপচিকিৎসায় পা হারাতে বসেছেন দীনমুজুর
ওসি প্রদীপের গা শিউরে ওঠার মতো এক ঘটনা প্রকাশ

ওসি প্রদীপের গা শিউরে ওঠার মতো এক ঘটনা প্রকাশ

দিন যতই গড়াচ্ছে ততই একের পর এক বেরিয়ে আসছে টেকনাফ থানার বরখাস্ত হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য।

এদিকে তিনি গ্রেপ্তার হওয়ার পর মুখ খুলতে শুরু করেছেন বিভিন্ন সময় অত্যাচার-নির্যাতনের শিকার মানুষের স্বজনরা। তাদের বর্ণনায় প্রকাশ পাচ্ছে গা শিউরে ওঠার মতো ভয়ংকর ঘটনা।

তবে আরও তিন বছর আগেই নিভে যেতো প্রদীপের আলো। কিন্তু বড় দুই কর্মকর্তার ছত্রছায়ায় প্রদীপের তৎপরতা বলবৎ ছিল।

ঘটনার পরিক্রমায় জানা যায়, ২০১৭ সালে প্রদীপ কুমারের বিরুদ্ধে বিচার বহির্ভূত হত্যার অভিযোগ দাখিল করতে চেয়ে রিট হয়েছিল। মহেশখালীর লবণ ব্যবসায়ী আব্দুস সাত্তারকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করেন ওসি প্রদীপ। এরপর সাজানো হয় ‘বন্দুকযুদ্ধ’। গণমাধ্যমের সামনে এমনটাই দাবি করেন আব্দুস সাত্তারের স্ত্রী।

ওইসময় নাকি তাকে এফআইআর দাখিলের আদেশও দেন হাইকোর্ট। কিন্তু ওই দুই কর্মকর্তার অবস্থানের কারণেই বহাল তবিয়তে ছিলেন প্রদীপ।

আইনজীবীরা বলছেন, আদালতের নজরে আনার পরও প্রদীপের তৎপরতা চলমান থাকার দায় পৃষ্ঠপোষকদের।

২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি মহেশখালী মাঝেরপাড়ার ব্যবসায়ী আব্দুস সাত্তার পুলিশের গুলিতে নিহত হন। ঘটনার নেপথ্যে পুলিশ জানায়, তাদেরকে লক্ষ্য করে গুলি চালান আব্দুস সাত্তার। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ পাল্টা গুলি চালালে তিনি মারা যান।

এদিকে হাইকোর্টে করা রিটে আব্দুস সাত্তারের স্ত্রী বলছেন, ঘটনার দিন গভীর রাতে বাড়ি ঘিরে রাখে পুলিশ। সকাল ৭টায় কালামারছড়া পুলিশ ফাঁড়িতে নেয়া হয় আব্দুস সাত্তারকে। সেখানে নয়াপড়া মসজিদের সামনে তার স্বামীকে মারধর করা হয়। পরে প্রদীপ কুমার দাশই তাকে গুলি করেন। এ ঘটনার মোট সাক্ষী ১০ জন। প্রদীপ কুমারসহ ২৯ জনকে আসামিও করা হয়।


 

 




All rights reserved © Satkhira Vision

Design & Developed BY Asha IT