চীন-ভারত যুদ্ধের দামামা, পুরো প্রস্তুত চীন! – Satkhira Vision

April 14, 2021, 8:03 am

সংবাদ শিরোনাম :
শ্যামনগর: প্রেমের ঘটনাকে কেন্দ্র করে হিন্দু বাড়িতে হামলা! ঘর ও মন্দির ভাঙচুর সবাই সর্তক থাকলেই করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব: নজরুল ইসলাম দেবহাটা: মানুষের সাথে মৌমাছির বসবাস শ্যামনগর: ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বন্ধ হল বাল্যবিবাহ শ্যামনগর: উপকূলের ক্ষতিগ্রস্থ মানুষকে ফ্রি স্বাস্থ্য সেবা প্রদান কলারোয়া: সেবার দাফন টিমের সদস্যদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত সাতক্ষীরা: বন্ধুকে জবাই করে নিজের বাবাকে জানায় খুনি সাগর! সাতক্ষীরা: গাঁজা ক্রয়ের ২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে জবাই করে খুন করে সাগর দেবহাটা: দূর্ঘটনায় নিহতের পরিবারের পাশে আওয়ামী লীগ নেতা বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমস-এ রৌপ্য পদক জয়ী দেবহাটার ইয়াছিন
চীন-ভারত যুদ্ধের দামামা, পুরো প্রস্তুত চীন!

চীন-ভারত যুদ্ধের দামামা, পুরো প্রস্তুত চীন!

এসভি ডেস্ক: সীমান্তে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বন্ধ করার কোনও ইতিবাচক ইচ্ছে নেই চীনের! লাদাখ সীমান্তে ভারত ও চীন সেনা একের পর এক বৈঠকের মাধ্যমে সেনার পিছু হঠার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল৷ কিন্তু বর্তমানে যা পরিস্থিতি, পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় ৪০ হাজার চীন সেনা রীতিমতো ঘাঁটি গেড়ে রয়েছে৷

যার নির্যাস, সীমান্তে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার কোনও সদিচ্ছা চীনের নেই বলেই জোরাল ইঙ্গিত৷

সংবাদ সংস্থা ANI-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে সেনা সরানোর প্রতিশ্রুতি ভারতীয় সেনার সঙ্গে বৈঠকে দিয়েছিল চীন৷ কিন্তু পিপলস লিবারেশন আর্মির বর্তমান গতিবিধি বলছে, চীন সেই প্রতিশ্রুতি পালন করছে না৷ সরকার ও সেনা স্তরে একের পর এক বৈঠকের পরেও ৪০ হাজার সেনাকে পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় মোতায়েন করে রেখেছে চীন৷

সূত্রের খবর, ৪০ হাজার সেনার পাশাপাশি একাধিক উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন যুদ্ধবিমানও মোতায়েন করে রেখেছে ওই এলাকায়৷ রয়েছে একাধিক কামানও৷ সব ভারতের দিকে নিশানা করা৷

এর আগে গত ৬ জুলাই জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল সীমান্ত সংঘাত নিয়ে কথা বলেন চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ওয়াং ই-এর সঙ্গে৷ সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে খোলাখুলি কথা হয় ডোভাল ও ওয়াং-এর৷ দুজনের কথায় ঠিক হয় যে, সামীন্তে শান্তি ও স্থিতাবস্থা বজায় রাখবে দুপক্ষই এবং দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের জন্য এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ নিজেদের ভিন্ন চিন্তাভাবনা কখনই বিরোধিতা তৈরি করবে না৷

এই ফোনের পর গালওয়ানে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় সেনার গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ করে ভারত ও চীন৷ এবং নিজেদের সেনা পিছিয়ে নেয়৷ ডোভাল ও ওয়াংয়ের সেই আলোচনায় ঠিক হয়, সীমান্তে শান্তি বিঘ্নিত হয়, এমন কোনও কাজ করবে না কোনও পক্ষই৷ এমনকী, গালওয়ানে স্থায়ী নির্মাণ ভাঙার প্রতিশ্রুতিও চীন দেয়৷

চীনা সরকারি মুখপত্র গ্লোবাল টাইমসে প্রকাশিত চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, ৩০জুন ভারত-চীন কম্যান্ডার স্তরের বৈঠকের পরই সীমান্ত শান্তি ফেরানোর জন্য পদক্ষেপ শুরু করেছে চীন৷ ধীরে ধীরে তাদের সেনা সরানোর কাজ শুরু হয়েছে৷

গালওয়ান, হট স্প্রিং, গোগরা থেকে সেনা সরাতে শুরু করে ভারত ও চীন৷ বাফার জোন তৈরি করতে সেনা সরায় দু’দেশ৷

কিন্তু চীনের বর্তমান আচরণ, সেই প্রতিশ্রুতি পালনের কোনও সদিচ্ছা নেই বলেই ইঙ্গিত দিচ্ছে৷ বরং সীমান্তে উত্তেজনা জিইয়ে রাখাই চীনের উদ্দেশ্য, তা মোটের উপর স্পষ্ট৷


 

 




All rights reserved © Satkhira Vision

Design & Developed BY Asha IT