আশাশুনি: আম্ফানের তান্ডবের ৫২দিনেও নির্মিত হয়নি বেড়ীবাঁধ! – Satkhira Vision

April 14, 2021, 5:49 pm

সংবাদ শিরোনাম :
প্রেমের ফাঁদে ফেলে শারীরিক সম্পর্ক! কলেজ শিক্ষার্থীর মামলায় যুবক গ্রেপ্তার শ্যামনগর: বাঘের আক্রমণে লাশ হয়ে ফিরলেন হাবিবুর! শ্যামনগর: প্রেমের ঘটনাকে কেন্দ্র করে হিন্দু বাড়িতে হামলা! ঘর ও মন্দির ভাঙচুর সবাই সর্তক থাকলেই করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব: নজরুল ইসলাম দেবহাটা: মানুষের সাথে মৌমাছির বসবাস শ্যামনগর: ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বন্ধ হল বাল্যবিবাহ শ্যামনগর: উপকূলের ক্ষতিগ্রস্থ মানুষকে ফ্রি স্বাস্থ্য সেবা প্রদান কলারোয়া: সেবার দাফন টিমের সদস্যদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত সাতক্ষীরা: বন্ধুকে জবাই করে নিজের বাবাকে জানায় খুনি সাগর! সাতক্ষীরা: গাঁজা ক্রয়ের ২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে জবাই করে খুন করে সাগর
আশাশুনি: আম্ফানের তান্ডবের ৫২দিনেও নির্মিত হয়নি বেড়ীবাঁধ!

আশাশুনি: আম্ফানের তান্ডবের ৫২দিনেও নির্মিত হয়নি বেড়ীবাঁধ!

শেখ বাদশা: সুপার সাইক্লোন আম্ফানের তান্ডবে সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর ইউনিয়নসহ কয়েকটি ইউনিয়নের নদীর বেড়ীবাঁধ ভেঙ্গে ৩টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়। ভাঙ্গন কবলিত এলাকার প্রায় ২০ হাজার অসহায় মানুুষ জোয়ার ভাটার পানিতে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

গত ২০মে রাতে ভেঙ্গে যাওয়া পাউবো’র ভেড়ী বাঁধ এখনো পুন: নির্মাণ না হওয়ায় নদীর জোয়ার ভাটার পানি উঠানামা করছে মানুষের বাড়ী ঘরে। খোলপেটুয়া নদীর জোয়ার-ভাটায় প্রতাপনগর ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা এখন একাকার হয়ে গেছে। লবণাক্ত পানিতে নিমজ্জিত ও জলমগ্ন গ্রামের পর গ্রাম। বাড়ী ঘর হারিয়ে মানুষ এখন যেন নিজেদেরই কুলকিনারা খুজে পাচ্ছে না।

প্রতাপনগর ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ ইউপি চেয়ারম্যান শেখ জাকির হোসেনের নেতৃত্বে স্থানীয়রা প্রতিদিন সকাল ৬টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত নিজেদের বাপ দাদার ভিটামাটি রক্ষার্থে স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে কাজ করে যাচ্ছেন।

ভাঙ্গন কবলিত স্থানে স্বেচ্ছায় কাজ করা শ্রমিকরা জানান, আমরা আর ত্রাণ চাইনা, আমরা পরিবার পরিজন নিয়ে বেঁচে থাকার জন্য টেকসই বেঁড়ীবাধ চাই।

ভাঙ্গন কবলিত স্থানে বাঁধ রক্ষা কাজে কর্মরত প্রতাপনগর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ জাকির হোসেন বলেন, আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্থ প্রতাপনগর ইউনিয়নের বানভাসি মানুষের ভিটাবাড়ী রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার ইউনিয়নের হরিষখালিতে প্রায় ৮৫ লক্ষ টাকা বরাদ্ধ ঘোষণা করেছেন। যা বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিয়োগকৃত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কাজ করবেন। কিন্তু বাঁধ ভাঙ্গার ৫২দিন অতিবাহিত হলেও পাওবো’র কোন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান বাঁধ রক্ষার্থে এগিয়ে আসেননি। তাছাড়া এখনও কোন দিন বাঁধ পরিদর্শনেও আসেননি তারা।

রোববার বিকেল ৪টা পর্যন্ত কাজ করে হরিষখালির একটি অংশের বাঁধ আটকানো সম্ভব হয়েছে।

এমতবস্থায় প্রতাপনগরসহ উপজেলার ভাঙ্গন কবলিত স্থানে টেঁকসই বেড়ীবাঁধ নির্মাণ করে নিয়মিত ভাঙ্গন ক্রিয়া প্রতিরোধে সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন এমনটাই প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।


 

 




All rights reserved © Satkhira Vision

Design & Developed BY Asha IT