করোনা থেকে জীবন বাঁচানো ‘প্রতিষেধক’ ডেক্সামেথাসোন – Satkhira Vision

April 11, 2021, 12:18 am

সংবাদ শিরোনাম :
বর পছন্দ না হওয়ায় নববধূর আত্মহত্যা সাতক্ষীরা: বন্ধুকে জবাই করে নিজের বাবাকে জানায় খুনি সাগর! সাতক্ষীরা: গাঁজা ক্রয়ের ২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে জবাই করে খুন করে সাগর দেবহাটা: দূর্ঘটনায় নিহতের পরিবারের পাশে আওয়ামী লীগ নেতা বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমস-এ রৌপ্য পদক জয়ী দেবহাটার ইয়াছিন সাতক্ষীরা: একসাথে নেশা করতে যেয়ে কাশেমপুরে বন্ধুর চুরিকাঘাতে কিশোর নিহত কলারোয়া: বালিয়াডাঙ্গা বাজারে অগ্নিকাণ্ডে ৬ দোকান ভষ্মিভূত কলারোয়া: মুখ চেপে ধরে শিশুকে বলৎকার, রক্তক্ষরণ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি সাতক্ষীরা: সরকারী গোরস্থান হতে সালাউদ্দীনের খুনি সাগর গ্রেপ্তার কলারোয়া: করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতার উপর উপজেলা কমিটির গুরুত্বারোপ
করোনা থেকে জীবন বাঁচানো ‘প্রতিষেধক’ ডেক্সামেথাসোন

করোনা থেকে জীবন বাঁচানো ‘প্রতিষেধক’ ডেক্সামেথাসোন

এসভি ডেস্ক: করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের জীবন বাঁচাতে পারে ডেক্সামেথাসোন নামের একটি সস্তা এবং বহুল পরিমাণে ব্যবহৃত ওষুধ। স্বল্প পরিমাণে স্টেরয়েড চিকিৎসায় এটি করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বড় সফলতা দেখিয়েছে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের বিজ্ঞানীরা।

বিদ্যমান ওষুধগুলোর মধ্যে কোনটা করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধেও কাজ করে তা দেখার জন্য বিশ্বের সব পরীক্ষার মধ্যে ডেক্সামেথাসোন পরীক্ষা হচ্ছে বৃহত্তম। গবেষণায় দেখা গেছে, এটি ভেন্টিলেটরে চিকিৎসাধীন করোনা রোগীদের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশের মৃত্যুর ঝুঁকি হ্রাস করে। অক্সিজেন নেয়া রোগীদের ক্ষেত্রে মৃত্যু হ্রাসের সংখ্যা এক-পঞ্চমাংশ।

গবেষকরা অনুমান করেন যে, ড্রাগটি যুক্তরাজ্যে করোনা ভাইরাস মহামারির শুরু থেকে পাওয়া গেলে অন্তত ৫ হাজার লোকের জীবন বাঁচানো যেত। কারণ এটি সস্তা, বিশাল সংখ্যক কোভিড-১৯ রোগীর চিকিৎসার জন্য দরিদ্র দেশগুলোও এর মাধ্যমে বিশাল উপকার পেতে পারে।

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত প্রতি ২০ জন রোগীর মধ্যে প্রায় ১৯ জন হাসপাতালে না এসে ভাল হয়ে যায়। যারা হাসপাতালে ভর্তি হয়, তাদের মধ্যেও বেশিরভাগই ভাল হয়ে যায় তবে কারও কারও জন্য অক্সিজেন বা ভেন্টিলেশনের প্রয়োজন হতে পারে। এ ধরনের উচ্চ ঝুঁকিযুক্ত রোগীর জন্য ডেক্সামেথাসোন উপকারি হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির একটি দলের নেতৃত্বে এই পরীক্ষায় প্রায় হাসপাতালের ২ হাজার রোগীদের ডেক্সামেথাসোন দেয়া হয়েছিল। তাদের সাথে যারা ড্রাগ পাননি এমন ৪ হাজার রোগীর তুলনা করা হয়। ভেন্টিলেটর রোগীদের ক্ষেত্রে এটি মৃত্যুর ঝুঁকি ৪০ শতাংশ থেকে ২৮ শতাংশে কমিয়ে আনে। অক্সিজেনের প্রয়োজন হয় এমন রোগীদের জন্য এটি মৃত্যুর ঝুঁকি ২৫ থেকে ২০ শতাংশে হ্রাস করে।

ডেক্সামেথাসোন ১৯৬০ সালের গোড়া থেকেই ব্যবহার করা হয় রিউম্যাটয়েড আর্থাইটিস এবং হাঁপানির মতো রোগের চিকিৎসায়। আউসিইউতে থাকা রোগীদের জন্য এটি স্যালাইনের মাধ্যমে এবং কম গুরুতর অসুস্থ রোগীদের জন্য এটি ট্যাবলেট হিসাবে দেয়া হয়। 


 

 




All rights reserved © Satkhira Vision

Design & Developed BY Asha IT