দেড়যুগ পেরিয়ে গেলেও এমপিওভুক্ত হয়নি কলারোয়া বেত্রবতী হাইস্কুল – Satkhira Vision

April 11, 2021, 12:43 am

সংবাদ শিরোনাম :
বর পছন্দ না হওয়ায় নববধূর আত্মহত্যা সাতক্ষীরা: বন্ধুকে জবাই করে নিজের বাবাকে জানায় খুনি সাগর! সাতক্ষীরা: গাঁজা ক্রয়ের ২০০ টাকার জন্য বন্ধুকে জবাই করে খুন করে সাগর দেবহাটা: দূর্ঘটনায় নিহতের পরিবারের পাশে আওয়ামী লীগ নেতা বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমস-এ রৌপ্য পদক জয়ী দেবহাটার ইয়াছিন সাতক্ষীরা: একসাথে নেশা করতে যেয়ে কাশেমপুরে বন্ধুর চুরিকাঘাতে কিশোর নিহত কলারোয়া: বালিয়াডাঙ্গা বাজারে অগ্নিকাণ্ডে ৬ দোকান ভষ্মিভূত কলারোয়া: মুখ চেপে ধরে শিশুকে বলৎকার, রক্তক্ষরণ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি সাতক্ষীরা: সরকারী গোরস্থান হতে সালাউদ্দীনের খুনি সাগর গ্রেপ্তার কলারোয়া: করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতার উপর উপজেলা কমিটির গুরুত্বারোপ
দেড়যুগ পেরিয়ে গেলেও এমপিওভুক্ত হয়নি কলারোয়া বেত্রবতী হাইস্কুল

দেড়যুগ পেরিয়ে গেলেও এমপিওভুক্ত হয়নি কলারোয়া বেত্রবতী হাইস্কুল

কলারোয়া প্রতিনিধি: প্রায় দেড়যুগ পেরিয়ে গেলেও মাধ্যমিক পর্যায়ে এমপিওভুক্ত হয়নি কলারোয়া পৌরসদরের বেত্রবতী আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি (ইআইআইএন-১১৮৬৫৩)।

১৯৯৫ সালে পৌরসদরের বেত্রবতী নদীর কাছাকাছি সুন্দর মনোরম পরিবেশে গড়ে ওঠা নদীর নামে গড়ে ওঠা প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতি বছর শিক্ষার্থীরা পাবলিক পরীক্ষায় ভালো ভলাফল করে আসছে। কিন্তু দু:খের বিষয় হলো এই প্রতিষ্ঠান থেকে ২০০৪ সাল থেকে এ পর্যন্ত ১৬টি ব্যাচ এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সুনামের সাথে কৃতকার্য হলেও এর পিছনে যাদের অবদান সেই শিক্ষকদের মধ্যে মাধ্যমিক পর্যায়ে নিয়োগপ্রাপ্ত ৪ জন শিক্ষকের এখনও পর্যন্ত বেতন হয়নি।

বিদ্যালয়টি মাধ্যমিক পর্যায়ে স্বীকৃতি পায় ২০০৪ সালের ২৭ নভেম্বর। প্রায় প্রতি বছর বিদ্যালয়ের এসএসসি ও জেএসসি পরীক্ষায় পাশের হার শতকরা ৮০ ভাগের ওপরে থাকে। শুধুমাত্র ২০১৮ সালের এসএসসিতে পাশের হার ৫৩ ভাগ হয়। সেবছর বোর্ডের পাশের হার ছিলো তুলরনামূলক কম। অন্যদিকে, ২০১৬ সালে ৫৫ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে ৫৫ জন শিক্ষার্থীই পাশ করায় সেবছর পাশের হার ছিলো ১০০ ভাগ। ২০১৭ সালে পরীক্ষা দেয় ৪৪ জন পাশ করে ৩৫ জন। পাশের হার ছিলো শতকরা ৮০ ভাগ। সর্বশেষ ২০১৯ সালে ৬৯ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে পাশ করে ৬১ জন শিক্ষার্থী। ওই বছরেও পাশের হার ছিলো শতকরা ৮৮.৪০ ভাগ। ২০১৮ সালে বিদ্যালয়টিতে মোট শিক্ষার্থী ছিলো ৪২৮ জন। কাম্য শিক্ষার্থীসহ পাশের হার ভালো হলেও দীর্ঘ বছর বেতন-ভাতা না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন বিদ্যালয়ের ৪ শিক্ষক ও ১ নৈশ প্রহরী।

বিদ্যালয়ের মধ্যবয়সী শিক্ষক মোঃ মশিউর রহমান আক্ষেপ করে বলেন, আমরা বোধ হয় বিনা বেতনে অবসরে যাবো। তিনি সদাশয় সরকারের কাছে তাঁর আকুতি তুলে ধরে বলেন, যোগ্যতার মাপকাঠিতে কোনো ঘাটতি না থাকা সত্তে¡ও এমপিওভুক্তি না হওয়াটা সত্যিই দুর্ভাগ্যজনক। এ ব্যাপারে মানবতার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি, স্থানীয় সংসদ সদস্য এড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহসহ সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে মিনতি জানিয়ে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্তির আবেদন জানান।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাশেদুল হাসান বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠানটি উপজেলার মধ্যে মাধ্যমিক পর্যায়ের নন এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অন্যতম হয়েও মাধ্যমিকে বেতন হচ্ছে না। নিরন্তর সকল চেষ্টা চালিয়েও দীর্ঘ বছরেও শিক্ষকবৃন্দের হাতে বেতন তুলে দিতে না পারার কষ্ট যে কতো কঠিন সেটি বলে শেষ করা যাবেনা। প্রতিষ্ঠানটি পাবলিক পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের পাশাপাশি সকল জাতীয় ও আন্তজার্তিক কর্মসূচিসহ ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিতে দক্ষতার স্বাক্ষর রেখে চলেছে ধারাবাহিকভাবে। তার পরেও এমপিও না পাওয়ায় চরম অবহেলার শিকার হচ্ছেন সম্মানিত শিক্ষকবৃন্দ। প্রধান শিক্ষক এসময় দীর্ঘ বছর পরে বিদ্যালয়ে একটি ৪ তলা ফাউন্ডেশনের নতুন ভবন নির্মাণ কাজ প্রক্রিয়াধীন থাকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি, স্থানীয় সংসদ সদস্য এড. মুস্তফা লুৎফুল্লাহসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটি এমপিওভুক্ত করণের আহবান জানান।

দীর্ঘ বছরেও এমপিও না হওয়ায় বঞ্চিত শিক্ষকবৃন্দের মনে সঙ্গত কারণেই প্রশ্ন জাগে-আর কতবার এসএসসি পরীক্ষা দিলে মাধ্যমিক পর্যায়ে এমপিওভুক্ত হবে প্রতিষ্ঠানটি। দীর্ঘ দেড়যুগ ধরে বেতন বঞ্চিত ভুক্তভোগী শিক্ষকবৃন্দ তাদের চরম দুরবস্থার কথা বিবেচনা করে দ্রæততার ভিত্তিতে এমপিওভুক্তির আকুল আবেদন জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, এ বছর কলারোয়া উপজেলায় মাধ্যমিক পর্যায়ে সাতপোতা রহিমা বালিকা বিদ্যালয়, মাদরাসা পর্যায়ে ধানঘরা দাখিল মাদরাসা ও কলেজ পর্যায়ে সোনার বাংলা কলেজের কারিগরি শাখায় একটি ট্রেডে এমপিওভুক্ত হয়।


 

 




All rights reserved © Satkhira Vision

Design & Developed BY Asha IT