এসভি ডেস্ক: জন্মগত ত্রুটি নিয়ে ঝিনাইদহে একটি শিশুর জন্ম হয়েছে। শিশুটি বর্তমানে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। শিশুটির মা রেক্সনা খাতুন স্থানীয় সৃজনী প্রাইভেট হাসপাতালে সুস্থ থাকলেও ছেলে শিশুটি জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে। শিশুটির হার্ট, ঢায়াফ্রম ও খাদ্যনালীর বৃহৎ অংশ শরীরের বাইরে হয়েছে।

দাদি শাহিনা খাতুন জানান, সদর উপজেলার ডেফলবাড়ি গ্রামে তাদের বাড়ি। ছেলে মোদাচ্ছের আলীর সাথে রেক্সনার বিয়ে হয় গত এক বছর আগে। মঙ্গলবার বিকালে সৃজনী প্রাইভেট হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে রেক্সনার ছেলে সন্তান হয়। শিশুটি মায়ের পেট থেকেই বিকালঙ্গ। তার হাত ও পা বাঁকা। পায়ের পাতা নেই। ঠোট কাটা এবং বুক ও পেটের সামনের অংশ দেহের বাইরে। শিশুটির এই অবস্থা দেখে তাকে দ্রুত ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স নাহানুর জানান, শিশুটি জন্ম হয়েছে সৃজনী প্রাইভেট হাসপাতালে। আমরা তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষনে রেখেছি। এ ধরণের শিশুটি চিকিৎসা এখানে সম্ভব নয়। এ জন্য শিশুটির স্বজনদের ঢাকায় নিয়ে যেতে বলা হয়েছে। কিন্তু তারা যাবেন না।

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার আনোয়ারুল করীম জানান, এ ধরণের শিশুকে বলা হয় মারাত্মক জন্মগত ত্রুটি। তিনি বলেন শরীরের বাইরে হার্ট ও ডায়াফ্রামটি ফেটে যেতে পারে। এ জন্য ব্যন্ডেজ করে রাখা হয়েছে। তিনি বলেন এ ধরণের শিশু বেঁচে থাকা ইতিহাসে বিরল। তারপরও শিশু হাসপাতালে নিয়ে গেলে তারা ব্যবস্থা গ্রহন করে দেখা যেতে পারে।

শিশুটির দাদি শাহিনা খাতুন জানান, তাদের আর্থিক অবস্থা ভাল না। ঝিনাইদহের বাইরে নিয়ে চিকিৎসা করা তাদের পক্ষে অসম্ভব। তাই তারা ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে রেখেই চিকিৎসা করাচ্ছেন। এমতাবস্থায় শিশুটি বাঁচাতে সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা কামনা করেন পরিবারের সদস্যরা। অার্থিক সাহায্যে পেলে হয়তো শিশুটিকে বাঁচানো সম্ভব বলে মনে করে কর্মরত চিকিৎসকরা।।