নিজস্ব প্রতিনিধি: সাতক্ষীরা পৌর অডিটোরিয়াম পাবলিক অনুষ্ঠানের জন্য উন্মুক্ত করা, পৌর এলাকায় নতুন পাবলিক টয়লেট স্থাপন ও সংস্কার, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও জলবাদ্ধতা নিসরনে কার্যকর ড্রেনেজ ব্যবস্থার দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 
সোমবার সকাল ১০টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আহবায়ক এড. ফাহিমুল হক কিসলু। 
সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আয়োজনে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর আব্দুল হামিদ, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এড. আবুল কালাম আজাদ, ডেইলি সাতক্ষীরার সম্পাদক হাফিজুর রহমান মাসুম, ইঞ্জিনিয়ার আবিদুর রহমান, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক ওবায়দুস সুলতান বাবলু, স্বদেশ এর নির্বাহী পরিচালক মাধব দত্ত, উদীচি সাতক্ষীরার সভাপতি শেখ সিদ্দিকুর রহমান, লোদী ইকবাল, সাংবাদিক রঘুনাথ খাঁ প্রমুখ।
সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের সদস্য সচিব আলীনুর খান বাবুল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের যুগ্ম-আহবায়ক সুধাংশু সরকার। এসময় সিনিয়র সাংবাদিক কল্যাণ ব্যানার্জি, রওনক বাসার, সহ বিভিন্ন সামাজিক-রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সাতক্ষীরা পৌর অডিটোরিয়ামটি জাতির জনকের নাম ব্যবহার করে একটি চক্র দখল করে রেখেছে। অথচ পৌর অডিটোরিয়াম জনগনের সম্পদ। জনগনের সম্পদ কারো কাছে হস্তান্তর করার ক্ষমতা কি মেয়র বা কাউন্সিলরদের আছে? না নেই। কারণ তারা জনগণের সেবক, শাসক নন। বর্তমানে সাতক্ষীরা পৌরসভার প্রতিটি রাস্তা জরাজীর্ণ হয়ে একেবারে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। পৌরসভা থেকে সুপেয় পানি সরবরাহ নেই। যে পানি সরবরাহ রয়েছে তা ব্যবহার করা যায় না। তারপরও প্রতিমাসে পানির বিল পরিশোধ করতে হয়। প্রাণসায়ের খালের সৌন্দর্য্য বর্ধনের কাজ উদ্বোধনের মধ্যে সীমাবন্ধ রয়েছে। পৌর দীঘির পাড়ের সৌন্দর্য্য বর্ধনের নামে হাস্যকর খাঁচা বানানো হয়েছে।
সাতক্ষীরা শহর ক্রমেই একটি ভাগাড় ও বসবাসের অযোগ্য বস্তিতে পরিণত হচ্ছে। অথচ পৌরসভার নগর পরিকল্পনাবিদ রয়েছেন, প্রকৌশলী রয়েছে। তারা বসে বসে বেতন তুলছেন কি কারণে? বক্তারা অবিলম্বে পৌর অডিটোরিয়াম উন্মুক্ত, সুপেয় পানির ব্যবস্থাসহ সাতক্ষীরাকে একটি সুপরিকল্পিত শহরে রুপান্তরিত করার দাবি জানান।